২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,১১ই এপ্রিল, ২০২১ ইং,রবিবার,সকাল ৭:৫৮

জানুয়ারি ২৫, ২০২১
বড় ব্যাবধানে টাইগারদের জয়।।বাংলাওয়াশের স্বাদ নিলো উইন্ডিজ

স্পোর্টস ডেস্কঃ
বাংলাদেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের সবকটি জিতে উইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশের স্বাদ নিলো। ২৯৮ রানের বড় লক্ষ্যের বিপরীতে জয়ের লক্ষ্যে না হলেও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সম্মানজনক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন রোভম্যান পাওয়েল। তারপরেও শেষ রক্ষা হয়নি। ৪৭ রানে ব্যাট করতে থাকা এই ব্যাটসম্যানকে সৌম্য সাজঘরে ফেরানোর পরেই দ্রুত গুটিয়ে গেছে ক্যারিবীয়রা। বাংলাদেশ শেষ ওয়ানডে জিতেছে ১২০ রানে।
সোমবার সিরিজের শেষ ম্যাচে টস হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (৬৪*), মুশফিকুর রহিম (৬৪), তামিম ইকবাল (৬৪) ও সাকিব আল হাসানের (৫১) ফিফটিতে ভর করে ২৯৭ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে বাংলাদেশ।

জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ৭ রানে উইকেট হারায় উইন্ডিজ। সিরিজের তিন ম্যাচেই বাংলাদেশ দলকে ব্রেক থ্রু উপহার দেন মোস্তাফিজুর রহমান। তার শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন কেজর্ন ওটলি। ওটলিতে অফ স্টাম্পের বাইরে বল করছিলেন মোস্তাফিজ। সুইং করে বেরিয়ে যাচ্ছিল বল। কিন্তু লাইন ধীরে ধীরে ব্যাটসম্যানের কাছে নিয়ে আসছিলেন। ওভারের শেষ বলটা ছিল সবচেয়ে কাছে, উইকেট আসে সেটাতেই। খোঁচা মেরে মুশফিকুর রহিমের গ্লাভসে ধরা পড়েন ওটলি। ৮ বলে এই ওপেনার করেন ১।

দীর্ঘদিন পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরেই বাজিমাত সাইফউদ্দিনের। পরপর দুই ওভারে ফেরালেন ক্যারিবিয় দুই সেট ব্যাটসম্যানকে। প্রথমে মুশফিকের ক্যাচ বানিয়ে জেসনকে (১৭) ফিরিয়ে ভাঙেন ৬৭ বল স্থায়ী ৩২ রানের জুটি। নিজের পরের ওভারেই দুর্দান্ত বোলিংয়ে এনক্রুমা বনারের (৩১) স্ট্যাম্প উড়িয়ে দিয়েছেন।

শেষ দিকে পাওয়েল প্রতিরোধ গড়লেও তাকে এলবিডাব্লিউ করেছেন সৌম্য। এরপর দ্রুত সাজঘরে ফিরেছেন বাকিরা। ফলাফল ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪৪.২ ওভারেই অলআউট ১৭৭ রানে।

এর আগে সাগরিকায় হাফসেঞ্চুরির পসরা মেলে বসেছেন টাইগাররা। তামিম, সাকিব, মুশফিকের পর দলে যোগ দিলেন মাহমুদউল্লাহ। এই চার সিনিয়র ক্রিকেটারদের ব্যাটে ভর করে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৬ উইকেট খুঁইয়ে ২৯৭ রান করেছে বাংলাদেশ। রানের পাহাড়ে চাপা পড়েছে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

দেশের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সাকিবের ব্যাট তার পক্ষেই কথা বলে। প্রথম ম্যাচে ১৯ করলেও দ্বিতীয় ম্যাচে ৪৩ রান ও তৃতীয় ম্যাচেই সাকিব পায় হাফ সেঞ্চুরির দেখা। যদিও হাফ সেঞ্চুরি করেই প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন সাকিব। ৮১ বলে খেলে তুলেছেন ৫১ রান। রেইফারের বলে বোল্ড হন সাকিব।

সাকিব ফিরলে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে বড় জুটি গড়েন মুশি। এই জুটিতে দলীয় রান ২০০ ও ২৫০ স্পর্শ করে। এর ভেতরেই মুশফিকুর রহিম তুলে নেন নিজের ৩৯তম অর্ধশতক। অন্য প্রান্ত থেকে দুর্দান্ত সমর্থন দেন রিয়াদ। কিন্তু শেষ দিকে ঝড়ো ব্যাট করতে গিয়ে মুশফিক ফেরেন ৫৫ বলে ৬৪ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলে। মুশি তার ইনিংস সাজান ৪টি চার ও দুটি ছয়ে।

এরপর রিয়াদ অর্ধশতক তুলে নেন। শেষ দিকে সৌম্য (৭) রান আউট হলেও মাত্র ৪৩ বলে তিনটি চার ও তিনটি ছয়ে ৬৪ রানে অপরাজিত থাকেন রিয়াদ।

ব্যাটে বলে সমান পারফরম্যান্সে ম্যান অফ দ্যা সিরিজের পুরষ্কার উঠেছে সাকিব আল হাসানের হাতেই।

এই ম্যাচে অনন্য এক বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন সাকিব। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তিন ফরম্যাট মিলিয়ে যেকোনো এক দেশের মাটিতে ৬ হাজারের বেশি রান ও ৩০০ উইকেটের রেকর্ডের মালিক শুধুই সাকিব। বিশ্বের আর কোনো ক্রিকেটারের এই রেকর্ড নেই। সাকিব এই রেকর্ড গড়েছেন নিজ দেশের মাটিতে। ভারতের ১৯৮৩ বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক কপিল ভারতের মাটিতে তিন ফরম্যাট মিলিয়ে ৪ হাজারের বেশি রান ও ৩০০ উইকেট শিকার করেছেন।

তামিম ইকবালও একটি রেকর্ড গড়েছেন। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসাবে ওয়ানডেতে ৫০০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন তামিম।তথ্যঃ অনলাইন।

0Shares
আরো খবর »

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ ওয়াহিদুজ্জামান
ফোনঃ +৮৮-০১৭৪২৩৪১৫২৩
ইমেইলঃ wzaman288@gmail.com

স্মরনিকা
২৪৭, টুটপাড়া মেইন রোড,
খুলনা-৯১০০, বাংলাদেশ ।
মোবাইলঃ+ ৮৮-০১৯২২৫৫৭৮৯৬
ইমেইলঃ dkhulnanews@gmail.com

কপিরাইট © ২০১৭ |
সর্বস্বত্ব ® স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ডিজিটালখুলনা.কম |
উন্নয়নে Real IT Solution