২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,১১ই এপ্রিল, ২০২১ ইং,রবিবার,সকাল ৭:৩৭

এপ্রিল ২২, ২০১৮
খুলনা সিটি কর্পোরেশন ও জনমত প্রতিক্রিয়া
।।সম্পাদকীয় ।।
সুন্দরবনের কোল ঘেষে আইলা দূগ’ত কোন এক গ্রাম হতে বছর সাতেক আগে ৩৮ বছরের আজিজুলের বসবাস শুরু মহানগরী খুলনায়।বিগত ২০১৩ সালের সিটি নিবা’চনেে ভোট দিয়েছেন।পেশায় একজন নিয়মিত রিক্সা চালক।সমিতির ঋণ নিয়ে মেশিন রিক্সা ক্রয় করলেও এখনো পুরো মালিকানা নিজের হয়নি।
কথা হয় তার সাথে।প্রসংগ- “আসন্ন খুলনা সিটি কপো’রেশন নিবা’চন”।
দুই সন্তানের পিতা আজিজুল সমিতির ঋণের কথা ও তাগাদার রুঢ়তার কথার ক্ষোভ ঝেড়ে বলেন- আমাগোর ভোট দেওয়া না দেওয়ায় কি হবে!
তাকে ভোটের গুরুত্যের কথা বললে – বলেন আগের বার ভোট দিয়েছি।আশা করেছিলাম- অন্তত খুলনার পথঘাট সিটি নিবা”চনের পর ভালো হবে।তবে পরে দেখা গেলো- ভালো তো দুরের কথা,বছর বছর জুড়ে শুধু রাস্তা খোড়াখুড়ি।
তাকে বোঝানোর চেষটা করা হলো- যে এগুলো কেসিসির অনুমোদন ক্রমে খুলনা ওয়াসার পাইপ লাইন সংস্কারের কাজ।বুঝতে চাইলেন না। তার একটাই কথা- বড় বড় চেয়ারের মানুষ গুলো শীতল বাতাসের অফিস কক্ষে বসে, নিজেদের দায় কিংবা দায়বদ্ধতা ভুলে যান ।
এ -তো গেলো একজন দরিদ্র রিক্সা চালক আজিজুলের কথা।এমন বহু আজিজুলের কাছেই ভোট কিংবা ভোট প্রদান ও প্রয়োগে নাই কোন – আগ্রহ কিংবা  প্রত্যাশা। কারন একটাই- মানুষ বিশেষ করে খেটে খাওয়া মানুষ গুলো কোন না কোন ভাবে কিংবা পরোক্ষ ভাবে আশাহীন এক অচরনের দৃশ্যমান আচরনকে বরংবার মুখোমুখি হয়।
তবে সব কিছু ছাপিয়ে সাধারন মানুষের কাছে রাজনৈতিক উত্তাপ যেমন ই থাকুক না কেন- ভোট প্রয়োগ একটা উতসব আর উদ্দিপনার মাঝ দিয়ে সম্পন্ন হয়ে থাকে।যদি  পরিবেশ স্থিতিশীল থাকে।
এসব হিসাবের চুল চেরা বিশ্লষনের সময়টা আসন্ন খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন কে নিয়ে যদিও এখনো আসেনি। তবে দোর গোঁড়ায় ।
খুলনা সিটি কপো’রেশন নিবা’চনের দিকে দৃষ্টি নিবন্ধ করলে দেখা যায়- খুলনার নামের সাথে অবহেলিত কথাটির তকমা উঠলে ও সাবি’ক অগ্রসরতা এখনো দৃশ্যমান নয়।

এর কারন হিসাবে রাজনৈতিক বিজ্ঞজনদের অনেকেরই মন্তব্য- খুলনার নগর উন্নয়নের বিষয়েও ঐক্যমত্য ও অপরিকল্পনার ছাপ লক্ষ করা যায়।যদিও এটা ভিন্নতর প্রসংগ ।

এবারকার খুলনা সিটি কপো’রেশন নিবা’চনে প্রধান দুই দলের প্রাথী’ হিসাবে বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জু আর আওয়ামীলীগের তালুকদার খালেকের গ্রহন যোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা ভিন্ন আংগিকে বিবেচিত হচ্ছে ।
এসব বিষয় নিয়ে খুলনা সিটি কপো’রেশন অধ্যুষিত বিভিন্ন স্থানের জনমত হতে জানা যায় নানা অভিমত।
খুলনা – ২ ও ৩ আসনের নিদিষ্ট এলাকা নিয়ে খুলনা সিটি কপো’রেশন।খুলনা পৌরসভা হতে আজকের সিটি কপো’রেশন। এই দীঘ’ সময়ের ভিতর অপেক্ষাকৃত  বিএনপি প্রাথি’রাই বেশীর ভাগ সময়ে দায়িত্ব পালন করেছেন।  মরহুম তৈয়েবুর রহমান দায়িত্বে ছিলেন ১৭ টি বছর।সে হিসাবে আওয়ামীলীগ হতে উল্লেখযোগ্য তালুকদার খালেক বিগত সময়ে ৫ বছর দায়িত্ব পালন করেছেন।
খুলনার জনমত বলছে –
খুলনার ভোট বিবেচনায় সব হতে গুরুত্ব পুন্য বিষয় হিসাবে নগরবাসীর কাছে  – উণ্ণয়ন।  আর উন্নয়নের বিবেচনায় ভোট প্রদান করতে তারা আগ্রহী।
বত’মান বিএনপি সমাথি’ত মেয়র মনিরুজ্জামান খুলনার দৃশ্যমান উন্নয়নে নিদিষ্ট উদাহারন যেমন পরিলক্ষিত হয়নি।তেমনই নগর ভবনের মৌলিক সেবা ও নানা রকম দুনী’তির অভিযোগ নগর বাসী বছর বছর শুনেছেন বলে তারা কম- বেশি হলেও অবগত।
এ বিষয়ে তাদের কেউ কেউ বলছেন-  খুলনা সদর থানার আওয়ামীলীগ সভাপতি এডভোকেট সাইফুল ইসলাম নগরবাসীর ভালোমন্দ – সুবিধা অসুবিধা নিয়ে বছরজুড়েই তিনি ছিলেন সোচ্চার।যার ফলশ্রুতিতে খুলনা সিটি কপো’রেশনের নানা অনিয়ম তারা গনমাধ্যমের দৌলতে অবগত আছেন।যার একটা রিয়াকশন আসন্ন  কেসিসি নিবা’চনে পরিলক্ষিত হতে পারে।
মানুষ এখন অনেক সোচ্চার।হুজুগে চলে না। এককথায় মাত্র স্বাক্ষর জ্ঞানী দিনমজুর রিএক্সা ওয়ালাও বলতে চান না- কাকে ভোট দিবেন?
তবে একথা অকপটে বলেন- আমরা ভালো থাকতে না পারলেও কোন ভোগান্তিতে পড়তে চাই না।
কেসিসি নিবা’চনে ২০০৮ সালের  বিজয়ী প্রাথী’ তালুকদার খালেকের কাছে খুলনার বিগত সময়ে  উন্নয়ন বিষয়ে নিদিষ্ট অভিমত জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান,আমি বিগত সময়ে পাঁচ বছর মেয়র থাকা কালীন খুলনার উন্নয়ন যা কিছুই করেছি তা দৃশ্যমান। আমার নতুন করে বলার কিছু নাই।
আজকের খুলনা শহীদ হাদিস পাক’, লিনিয়ার পাক’, ‘,রাস্তা-ঘাট সহ প্রভুত উন্নয়নগুলো খুলনাবাসী অবহিত আছেন ।
বর্তমান আওয়ামীলীগ মেয়র প্রার্থী তালুকদার খালেক কে জনগুরুত্য পুন্য
 নগরীর শীব বাড়ী খুলনা পাবলিক হলটির সংস্কার প্রসংগে জানতে চাওয়া হয়। তিনি বলেন, খুলনা পাবলিক হল টি নির্মিত হওয়ার অল্প কয়েক বছরের ভিতর জীন’দশা দেখা দেয়।
 মেয়রের দায়িত্বে থাকা কালীন  হলটির দুর্বল স্থাপনা ভেঙ্গে সিটি কপো’রেশনের বাজেটের আওতায়  – একটা হাই রাইজ বিল্ডিং বানানোর পরিকল্পনা ছিলো। আর পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে অনেক বেকারের কর্ম সংস্থানের সুযোগ হতো ।
প্রকাশ করা আবশ্যক, অবকাঠামোগত কাজের মান অতি নিম্ন মানের হওয়ায় – অল্প কয়েক বছরের ভিতর হলটির ফাটল সহ ব্যাবহার অনুপযোগী হয়ে পড়ে।
এ রকম খুলনা নগর উন্নয়নের বহু রকম সুযোগ  ইচ্ছা থাকলেও ঐক্যমত্যের অভাবে সেসব হয়ে ওঠে না।।
0Shares

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ ওয়াহিদুজ্জামান
ফোনঃ +৮৮-০১৭৪২৩৪১৫২৩
ইমেইলঃ wzaman288@gmail.com

স্মরনিকা
২৪৭, টুটপাড়া মেইন রোড,
খুলনা-৯১০০, বাংলাদেশ ।
মোবাইলঃ+ ৮৮-০১৯২২৫৫৭৮৯৬
ইমেইলঃ dkhulnanews@gmail.com

কপিরাইট © ২০১৭ |
সর্বস্বত্ব ® স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ডিজিটালখুলনা.কম |
উন্নয়নে Real IT Solution