সাম্প্রদায়িক ঘটনা এ সরকারের আমলেই বেশি হয়েছেঃ মির্জা ফখরুল

নিউজ ডেস্কঃ
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন,আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে দেশে সাম্প্রদায়িক হানাহানির ঘটনা বেশি ঘটেছে ।এটা সরকারের ব্যর্থতা ।

আজ দুপুরে গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে

নড়াইলের লোহাগড়ায় ফেসবুক পোস্টে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা সম্পর্কে এমন মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব।

লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া এলাকার এক কলেজছাত্র গতকাল শুক্রবার বিকেলে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)–কে কটূক্তি করে তাঁর ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন বলে অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় স্থানীয় বিক্ষুব্ধ লোকজন দিঘলিয়া বাজারে সংখ্যালঘুদের বাড়ি ও দোকানপাটে হামলা চালায়। এ সময় একটি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে তারা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ একপর্যায়ে শটগান দিয়ে ফাঁকা গুলি করে। আজ রোববার অভিযুক্ত সেই শিক্ষার্থীকে খুলনা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, ‘আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আমরা মনে করি, সাম্প্রদায়িকতা কোনোমতেই এ দেশে কাম্য না এবং এগুলো কখনোই কোনো ভালো বিষয় নিয়ে আসে না এবং এটা অন্যায়।’

তিনি বলেন, ‘আপনারা নিশ্চয়ই রামুর ঘটনা দেখেছেন, নাসিরাবাদের (ব্রাক্ষণবাড়িয়া) ঘটনা দেখেছেন, অন্যান্য জায়গায় দেখেছেন—সব সময়ই সাম্প্রদায়িকতার ঘটনা, বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়া—এ ঘটনাগুলো দেখেছেন।’

কারও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে স্ট্যাটাস দেওয়া থেকে বিরত থাকতেও আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, ‘এমন কোনো কথা না বলা বা স্ট্যাটাস না দেওয়া, যাতে আপনার অন্য সম্প্রদায়ের লোকদের ধর্মের অনুভূতিতে আঘাত করে।’

শ্রীলঙ্কার চিত্র তুলে ধরে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আওয়ামী লীগের চরিত্রগত একটা ব্যাপার আছে। সেটা হচ্ছে দুর্নীতি। তারা যখনই ক্ষমতায় আসে, তখন চরম দুর্নীতিতে লিপ্ত হয়ে যায়। আজকে গোটা দেশের চিত্র যেটা দেখছেন, শুধু দুর্নীতি। দুর্নীতি এমন একটা জায়গায় চলে গেছে, যে জায়গাটায় নো রিটার্ন হয়ে গেছে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ঋণ করে মেগা প্রকল্পের কাজ করা হচ্ছে। স্বাভাবিকভাবেই মানুষের দ্রব্যমূল্য বাড়ছে, মুদ্রাস্ফীতি বাড়ছে, রিজার্ভ নেই।

আজই নির্বাচন কমিশন রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ শুরু করেছে। সেই প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, এখানে দেশের মানুষ চায় না যে এই নির্বাচন কমিশনের অধীন কোনো নির্বাচন হোক বা এই সরকারের অধীন কোনো নির্বাচন হোক।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘আমরা মনে করি না যে এই নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে। সরকার যদি পরিবর্তন না হয়, নিরপেক্ষ সরকার যদি না আসে, এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না।’

সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময়ে বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্যসচিব শহীদ উদ্দিন চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।