পাকিস্তানে ইমরান খানকে গ্রেপ্তারে বিক্ষোভের ডাক, ইসলামাবাদে ১৪৪ ধারা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) চেয়ারম্যান ইমরান খান মামলার শুনানির হাজিরা দিতে ইসলামাবাদ হাইকোর্টে (আইএইচসি) মঙ্গলবার হাজির হয়েছিলেন। এরপর হুট করেই আদালত প্রাঙ্গণ থেকে ইমরান খানকে হেফাজতে নেন দেশটির আধা-সামরিক রেঞ্জার্সের সদস্যরা। তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ইসলামাবাদ পুলিশের মহাপরিদর্শক। খবর জিও নিউজের।

দলীয় প্রধান গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে পাকিস্তানজুড়ে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে পিটিআই। টুইটার বার্তায় দলের নেতারা বলছেন, পাকিস্তানের জনগণ, এখনই সময় দেশকে রক্ষা করার। পরবর্তীতে আপনারা আর কোনো সুযোগ পাবেন না।

দেশটির ইংরেজি দৈনিক ডন বলছে, ইসলামাবাদ পুলিশের মহাপরিদর্শক আকবর নাসির খান স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে বলা হয়, ইমরান খানকে গ্রেপ্তারের পর ইসলামাবাদের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। তবে, এই পরিস্থিতি যেন খারাপের দিকে না যায়, সেজন্য ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। নিষিদ্ধ করা হয়েছে চারজনের বেশি জমায়েত। সহিংসতা চালানোর চেষ্টা হলে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে।

স্থানীয় টিভিতে প্রচারিত সংবাদে বলা হয়, ইসলামাবাদ হাইকোর্টের সামনে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। সেখানে জড়ো হয়েছেন পিটিআইয়ের কয়েক শ কর্মী–সমর্থক। সেখানে তাদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সংঘর্ষ শুরু হয়।

ডন বলছে, ক্ষমতায় থাকাকালীন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী ও তার স্ত্রীর মালিকানাধীন আল-কাদির ট্রাস্টকে অবৈধভাবে জমি বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। প্রায় ৫৩০ মিলিয়ন পাকিস্তানি রুপি মূল্যের জমি দেশটির বাহরিয়া টাউন এলাকায় বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল।

পরে তার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার করে নিজের ও স্ত্রীর মালিকানাধীন ট্রাস্টকে জমি বরাদ্দ দেয়ার অভিযোগে মামলা হয়। জিও নিউজ বলছে, ইসলামাবাদ হাইকোর্টে বায়োমেট্রিক দিতে যাওয়ার সময় পিটিআই চেয়ারম্যানকে তুলে নিয়ে যায় রেঞ্জার্স। তার বিরুদ্ধে দেশটির জাতীয় তদন্ত সংস্থা ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টিবিলিটি ব্যুরো (ন্যাব) জমি বরাদ্দের মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছিল। অনলাইন।

ইমরান খানের গ্রেপ্তারের বিষয়ে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ টুইট করেন, রাষ্ট্রীয় সম্পদ নষ্ট করার দায়ে ইমরান খানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়াও তাকে একাধিক নোটিশ পাঠানো হলেও তিনি আদালতে হাজির হননি।