দৌলতপুরে খেয়া ঘাটের স্থান বহাল রাখার দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল

 

খুলনা জেলা পরিষদ কর্তৃক পরিচালিত দৌলতপুর বাজারের ঐতিহ্যবাহী শত বছরের
নদী পারাপাড়ে খেয়া ঘাটের স্থান বহাল রাখার দাবিতে গতকাল বুধবার সকাল ১১ টায় দৌলতপুর
বাজার উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে দৌলতপুর যশোর-খুলনা মহাসড়কের উত্তরা ব্যাংক চত্বরে মানববন্ধন
ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। সভাপতিত্ব করেন বাজার উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি শেখ কামাল
হোসেন ও সঞ্চালনায় ছিলেন বাজার উন্নয়ন সংস্থা সাংগঠনিক সম্পাদক এম এম জসিম। এ
সময় উপস্থিত ছিলেন ও বক্তৃতা করেন দৌলতপুর বাজার উন্নয়ন সংস্থার প্রধান উপদেষ্টা ও ৫ নং
ওয়ার্ড কাউন্সিলর কেষ, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নুর ইসলাম বন্দ,
সাবেক কাউন্সিলর শেখ কামরুজ্জামান,৫ নং ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি শেখ মফিজুর রহমান
হিরু,বাজার উন্নয়ন সংস্থা সাধারণ সম্পাদক নান্নু মোড়ল,স্বর্ণ ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ
সম্পাদক অশোক কর,ব্যবসায়ী আলী আকবর খান,জামাল উদ্দিন বাবলু,জিএম রহমান সাবু, শহিদুল
ইসলাম সেলিম,শামীম খান,দৌলতপুর বাজার উন্নয়ন সংস্থার নেতৃবৃন্দ যথাক্রমে সহ-সভাপতি মোঃ
আসাদ বন্দ,এম এম সফি,শেখ মোঃ কামমারহোসেন, মোঃ জাকির হোসেন,গাজী আকমল
হোসেন,মোঃ আজিজুল মোল্লা,মোঃ মাসুম শেখ, আরিফ মোড়ল,সুমন হাওলাদার,মোঃ আসলাম
ফকির,মোঃ হিরু শেখ,মোঃ জয়নাল মোল্লা,বাজার ব্যবসায়ী কালাম মোড়ল,ডিএম আলাউদ্দিন,শেখ
ইসমাইল হোসেন, শাহিন বেপারী, মোঃ ডিকলার,মোঃ জাহাঙ্গীর, মহিউদ্দিন আহম্মেদ রাজু,
শামীম, শেখ ফিরোজ, দুলাল গোমস্তা,শেখ পলাশ,আব্দুল বারেক,মোহাম্মদ আসলাম,হীরা
বাবু,বিকাশ দত্ত,ুসাজু, আলামিন,জাবেদ,আসলাম,মফিজুর রহমান মিঠু,মোহাম্মদ আলী,দুলাল
মিয়া,গোলাম মোস্তফা,আব্দুল মান্নান,মোঃ শফিক, শরীফ মোড়ল,বাচ্চু,কুতুব উদ্দিন
হাওলাদার,শাহ আলম, হাফিজ,আবুল হোসেন সহ বাজার উন্নয়ন সংস্থার সকল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ ও
সর্বস্তরের বৃন্দ। বক্তারা বলেন,১০০ বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী শত বছরের নদী পারাপাড়ে দৌলতপুর
বাজারের খেয়া ঘাটটি দিয়েই মানুষ পারাপার হয় এবং এই ব্যবসায়ীরা ব্যবসা-বাণিজ্য করে।
ষড়যন্ত্র করে এই ঘাটটি অন্যত্র স্থানতর করা হলে এই বাজারের ব্যবসায়ী ও ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ
ক্ষতিগ্রস্থ হবে। কেসিসি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক এই বাজারের অনেক উন্নয়ন করেছেন
ড্রেন,রাস্তাঘাট সহ যে সকল উন্নয়ন করেছেন তাতে বাজারের শৃঙ্খলা ফিরে এসেছে। সকল
রাস্তাঘাট প্রশস্ত হয়েছে। এখন মা-বোন সহ সকল ুমানুষের রাস্তা দিয়ে হেঁটে নদী পারাপার হতে
কোন সমস্যা নেই। জার্মান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের অর্থায়নে বিএল কলেজ থেকে শ্মশান ঘাট
পর্যন্ত শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের আওতায় বাজারের ভৈরব নদীর তীর সংরক্ষণ করে পারাপারের জন্য আরও সুন্দর
ঘাট নির্মাণ করা হবে। কর্তৃপক্ষের নিকট দাবী দৌলতপুর বাজার খেয়াঘাটটি বাজারেই রাখা
হোক।ুএই ঘাটটি অন্যত্র না নেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের নিকট ব্যবসায়ী ও বাজার উন্নয়ন সংস্থার
নেতৃবৃন্দ জোর দাবি জানান। সকলের মতামতকে উপেক্ষা করে যদি বাজারের ঘাটকে অন্যত্র স্থানান্তর
করা হয় তাহলে আরো কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করা হুঁশিয়ারি দেন। মানববন্ধন শেষে
বিক্ষোভ মিছিল দৌলতপুরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে সমাবেশের মাধ্যমে সমাপ্ত হয়।খবর বিঞ্জপ্তি :