দেশের ব্যাংক কার্ডধারীদের তথ্য ডার্ক ওয়েবে ফাঁস হচ্ছে

নিউজ ডেস্কঃ

বিজিডি ই-গভর্নমেন্ট কম্পিউটার ইনসিডেন্স রেসপন্স টিম (সার্ট) নামের সরকারি সংস্থার সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, নিজের অজান্তেই কিংবা বেখেয়ালি কিছু ভুলের কারণে দেশের অনেক কার্ডধারীর তথ্য চলে যাচ্ছে ইন্টারনেট জগতের অন্ধকার জগৎ ডার্ক ওয়েবে। এতে সহজেই বিপদে পড়তে পারেন কার্ডধারীরা।
ব্যাংক কার্ডধারীদের জন্য শঙ্কার খবর! প্রায় এক বছর ধরে সাইবার নিরাপত্তাবিষয়ক এ ধরনের গবেষণা করে আসছে সার্ট।

বলা হয়ে থাকে, এমন কোনো কুকর্ম নেই, যা ডার্ক ওয়েবে হয় না। সেই ওয়েবেই চলে যাচ্ছে ব্যাংক কার্ডের মতো স্পর্শকাতর সব তথ্য। তথ্য ফাঁসের জন্য দায়ী করা হয়েছে, গ্রাহকের অসচেতনতা ও ব্যাংকের দুর্বল সাইবার নিরাপত্তাব্যবস্থাকে।

গবেষণায় আরও দেখা গেছে, ক্লাসিক ক্যাটাগরির ৪৬ দশমিক ৩ শতাংশ, গোল্ড ৩১ দশমিক ২৪ শতাংশ, প্লাটিনাম ৫ দশমিক ৭১ শতাংশ ও প্রিপেইডের ৫ দশমিক ৩ শতাংশ কার্ডের তথ্য ডার্ক ওয়েবে পাওয়া গেছে। ডার্ক ওয়েবে পাওয়া বেশির ভাগ কার্ডের পাসওয়ার্ড দুর্বল বলে জানিয়েছে সার্ট।

জানা গেছে,
করোনা মহামারির পর থেকে দেশে কার্ডে লেনদেনের পরিমাণ বেড়েছে। মানুষ অনলাইনে প্রচুর কেনাকাটা করছে। দুর্বল কম্পিউটিং সিস্টেম বা ডিভাইসের নিরাপত্তাজনিত দুর্বলতায় অনেকের কার্ডের তথ্য ডার্ক ওয়েবে পাওয়া যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী, গত মে পর্যন্ত ডেবিট কার্ডের সংখ্যা ছিল ২ কোটি ৭১ লাখ ৬৯ হাজার ১৫০টি, ক্রেডিট কার্ড ১৯ লাখ ৪১ হাজার ১৬২টি ও প্রিপেইড কার্ড ১৬ লাখ ৩৯ হাজার ২৯০টি। মে পর্যন্ত ডেবিট কার্ডে ২৬ হাজার ৫০ কোটি, ক্রেডিট কার্ডে ২ হাজার ৩৭১ কোটি ও প্রিপেইড কার্ডে ১৭৭ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে।