খুলনায় নগরপরিবহন চালুর দাবিতে শেখ জুয়েল এমপির কাছে নিসচার স্মারকলিপি 

খুলনায় নগরপরিবহন চালুর দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করেছে নিরাপদ সড়ক চাইয়ের (নিসচা) খুলনা মহানগর শাখা। শনিবার (২৩ জুলাই) দুপুরে খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েলের কাছে এ স্মারকলিপি প্রদান করেন নিসচার নেতৃবৃন্দ।

স্মারকলিপিতে বলা হয়- দেশ স্বাধীনের পর ৬০টি বাস নিয়ে খুলনা শহরে ‘নগর পরিবহন বা টাইন সার্ভিস’ সেবা চালু হয়। ২০১৭ সালে ৫৫টি বাসই চলাচলের যোগ্যতা হারায়। এর পরের বছরই শহরে গণপরিবহন সেবা বন্ধ করে দেয়া হয়। ২০১৮ সালে শহরের নগর পরিবহন সেবা বন্ধ হওয়ায় ক্ষোভ সৃষ্টি হয় সাধারণ মানুষের মধ্যে। একই বছরে অনুষ্ঠিত হয় খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক নির্বাচনী ইশতেহারে ‘নগর পরিবহন’ পুনরায় চালুর প্রতিশ্রুতি দেন। ২০১৯ সালে খুলনা মোটর বাস মালিক সমিতির উদ্যোগে ৪টি গণপরিবহন চালু হয়। কিন্তু ইজিবাইক, মাহেন্দ্রা ও সিএনজির সাথে সম্পৃক্ত থাকা প্রভাবশালীদের কাছে হার মেনে করোনার আগেই সেগুলো ফের বন্ধ হয়ে যায়।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু চালুর পর খুলনা অঞ্চলে ব্যাপক উন্নয়নের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। বাড়ছে নগরীতে মানুষের আনা গোনা। দেশের তৃতীয় বৃহৎ মহানগরী খুলনা শহরে নিম্নবিত্ত থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের বসবাস। কিন্তু অত্যন্ত হতাশার বিষয় যে, খুলনা একটি বিভাগীয় শহর হওয়া সত্ত্বেও এখানে গণপরিবহন (লোকাল বাস) নেই। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির বাজারে বছরের পর বছর নগর-পরিবহন চালু না থাকায় সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছে স্বল্প আয়ের মানুষ, শিক্ষার্থী ও শ্রমজীবীরা। ইজিবাইক, মাহেন্দ্র ও সিএনজি অটোরিকশায় যথেচ্ছা ভাড়া আদায়, বেপরোয়া চলাচলে দুর্ঘটনা, চালকদের অসদাচরণ, যানজটসহ নানা রকমের অত্যাচারে নাকাল নগরবাসী। আমরা ইতোপূর্বে দেখেছি ঢাকায় সরকারি উদ্যোগে নগর পরিবহন চালু করতে। কিন্তু এটি অত্যন্ত হতাশার বিষয় যে, বিগত পাঁচ বছরে খুলনায় জনগণের স্বার্থে নগর-পরিবহনের মতো মৌলিক বিষয়ে কোনো কার্যকরী উদ্যোগ খুলনাবাসীর দৃষ্টিগোচর হয়নি। সুতরাং আপনার মাধ্যমে জনস্বার্থে অচিরেই সরকারি উদ্যোগে খুলনা শহরে পর্যাপ্ত সংখ্যক দুইতলা বিশিষ্ট বি.আর.টি.সি বাস চালু করার দাবি জানাচ্ছি।

যার প্রস্তাবিত রুটসমূহ: রূপসা টু ফুলতলা, রূপসা ব্রিজ-জিরো পয়েন্ট টু বিকেএসপি আটরা, ডুমুরিয়া-গল্লামারী-রেল স্টেশন, ফেরিঘাট-জোড়াগেট-পলিটেকনিক কলেজ-মহসীন কলেজ-পিপলস মিলস্-নতুন রাস্তা, শিববাড়ী-সোনাডাঙ্গা-বয়রা-নতুন রাস্তা, রূপসা ব্রিজ -লবনচরা-শিপইয়ার্ড -জজ কোর্ট।

স্মারকলিপি প্রদানের সময় উপস্থিত ছিলেন নিরাপদ সড়ক চাইয়ের (নিসচা) খুলনা মহানগর শাখার সভাপতি এসএম ইকবাল হোসেন বিপ্লব, সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান মুন্না, সহ-সাধারণ সম্পাদক মো: রুহুল আমীন তালুকদার সোহাগ, মো. রকিব উদ্দিন ফারাজী, অর্থ সম্পাদক মো. নাজমুল হোসেন, মহিলা সম্পাদক শিরিনা পারভীন, কার্যনির্বাহী সদস্য শেখ মেরাজ হোসেন, মো. শামীম হোসেন, তানিয়া সুলতানা, মো. আসলাম হোসেন, মফিজ আহমেদ মজুমদার প্রমুখ।

এসময় সংসদ সদস্য শেখ সালাউদ্দিন জুয়েলের হাতে নিসচার খুলনা মহানগর শাখা কর্তৃক প্রকাশিত ’নিরাপদ যাত্রা’ স্মারণীকা তুলে দেওয়া হয়।