ইউসেপ খুলনায় ‘সেইফগার্ডিং অ্যান্ড পিএসইএ’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

আগামী দিনগুলোতে কর্মী সুরক্ষায় সেইফগার্ডিং এবং প্রোটেকশান ফ্রম এক্সপ্লোয়েশান
অ্যান্ড এবিউজ (Protection from Exploitation and Abuse) পিএসইএ বা শোষণ ও বৈষম্য
থেকে সুরক্ষার বিষয়টি অত্যধিক গুরুত্ব দিয়ে কর্মপরিকল্পনার অংশ হিসেবে প্রশিক্ষণ প্রদান
শুরু করেছে ইউসেপ বাংলাদেশ।
রবিবার (২৭ আগস্ট) সোনাডাঙ্গায় অবস্থিত হোটেল পুস্প বিলাশে ‘সেইফ গাডিং অ্যান্ড
পিএসইএ’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব ড.
মোহাম্মদ আবদুল মজিদ, সদস্য, ইউসেপ বোর্ড অব গভর্নরস (সাবেক চেয়ারম্যান, জাতীয়
রাজস্ব বোর্ড)।
প্রশিক্ষক হিসেবে সেশন পরিচালনা করেন ইউসেপ সেইফগার্ডিং কমিটির চেয়ারপার্সন শেপা
হাফিজা, সদস্য নাজমুন নাহার, পরিচালক, ফাইন্যান্স এন্ড কমপ্লাইন্স, সদস্য সচিব মো:
সাজ্জাদুল হক, প্রিন্সিপাল, ইউসেপ ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স এ্যন্ড টেকনোলোজী। ইউসেপ
বাংলাদেশ, প্রধান কার্যালয় এই প্রশিক্ষণের আয়োজন করে।
ইউসেপ কর্মী, ইউসেপের অংশীদার, সুবিধাভোগী, স্বেচ্ছাসেবক, সরবরাহকারী ও কমিউনিটির
সকল মানুষের জন্য নিরাপদ পরিবেশ নিশ্চিতকরণে এবং শোষণ ও বৈষম্য থেকে সুরক্ষা বিষয়ক
সচেতনতা গড়ে তুলতে এ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়। এতে ইউসেপ খুলনার আওতাধীন বিভিন্ন
টেকনিক্যাল স্কুলের মোট ১১০ জন কর্মী অংশগ্রহণ করেন।
আলোচনায় অংশ নিয়ে জনাব ড. মোহাম্মদ আবদুল মজিদ সদস্য, ইউসেপ বোর্ড অব গভর্নরস
(সাবেক চেয়ারম্যান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড) বলেন, কর্মীদের আরো সুরক্ষিত রাখার জন্য ইউসেপ
বাংলাদেশের এই আয়োজন্। তিনি ব্যক্তিগত, ধর্মীয় ও সামাজিক অবস্থান থেকে জীবনমূখী
বিভিন্ন উদাহরণের মাধ্যমে সেইফগার্ডকে ব্যাখ্যা করেন। ইউসেপ শুরু থেকে সুবিধাবঞ্চিত
জনগোষ্ঠীর উন্নয়নকে অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করছে। প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর উন্নয়নের
পাশাপাশি ইউসেপ এখন কর্মীদের সুরক্ষা, সক্ষমতা ও দক্ষতা উন্নয়নকেও অগ্রাধিকার দিচ্ছে।
এ সম্পর্কে মোহাম্মদ কামরুজ্জামান, রিজিওনাল ম্যানেজার, খুলনা জানান, ‘সেইফগার্ডিং’ এখন
এখন শুধু নারীদের বিষয় নয়, বরং নারী-পুরুষ নির্বিশেষে কর্মপরিবেশ ঠিক রাখতে এটি এখন
অপরিহার্য বিষয়। যৌন হয়রানি প্রতিরোধে ইউসেপ ‘জিরো টলারেন্স’ নীতিতে বিশ্বাসী। এই
ধরণের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মীরা যাতে আরও সচেতন হয় এজন্য ভবিষ্যতে আরও
অ্যাডভোকেসি কার্যক্রম গ্রহণ করবে ইউসেপ। খবরঃ বিজ্ঞপ্তির